Uncategorized

বিদেশে পড়াশোনার অন্যতম সাথী ‘কগনিজেন্স’

উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষার পরেই শুরু হয় কলেজে ভর্তি ও নতুন বিষয় নিয়ে পড়াশোনার তাগিদ।অন্যদিকে অনেক ছাত্র-ছাত্রী অর্থনৈতিক সমস্যার কারনে অথবা সাধারন মানের ফলাফলের দরুন উচ্চ-শিক্ষায় যেতে পারেনা।তাদের এই সমস্যা থেকে অব্যাহতি দিতে আছে ‘কগনিজেন্স’।তাঁরা বিভিন্ন স্কিল ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম ছাড়াও স্নাতক ও উচ্চ স্নাতক স্তরে নার্সিং, হোটেল ম্যানেজমেন্ট, জার্নালিজম, বিবিএ, এমবিএ, পলিটেকনিক সহ বিভিন্ন একাডেমিক ও ডিপ্লোমা কোর্সের সুবন্দোবস্ত করেন ভারতের বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে।

আর্থিক সমস্যার দরুন তাঁরা লোনের ব্যবস্থাও করে থাকেন।আর্থিকভাবে স্বচ্ছল কিন্তু সাধারন মানের ছাত্র-ছাত্রী যাদের স্বপ্ন বিদেশে পড়াশোনা করার সে ক্ষেত্রেও এই সংস্থা সাহায্য করে।ডাক্তারি, ইঞ্জিনিয়ারিং সহ বিভিন্ন সুযোগ তাঁরা তাদের সংস্থার মাধ্যমে আমেরিকা, ইউক্রেণ, ইন্দোনেশিয়া, চায়না সহ বিশ্বের প্রায় ১০ টি দেশে সরকারি কলেজের সাথে ব্যবস্থা করে দেন।দেশের অভ্যন্তরে বা বিদেশে কোথাওই বেসরকারি কোনো কলেজ বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাথে ‘কগনিজেন্স’ কোনোরকম সহযোগিতা করে না।

8944555E 09E1 4B1C B1EE FD4D5FF24510 বিদেশে পড়াশোনার অন্যতম সাথী ‘কগনিজেন্স’ 58954185 7E18 42DE 86D1 16AF505BEB8B বিদেশে পড়াশোনার অন্যতম সাথী ‘কগনিজেন্স’

ছাত্র-ছাত্রীর সাথে ব্যক্তিগতভাবে আলোচনা করে এই সংস্থা তাদের সঠিক বিষয় বেছে নিতেও সাহায্য করে।বর্তমানে কলকাতা ছাড়াও তাদের শাখা রয়েছে দূর্গাপুর, শিলিগুড়ি, নদীয়াল দেবগ্রাম, মুর্শিদাবাদের সালার, গ্যাংটক ও মিজোরামে।সংস্থার কর্ণধার সিন্থিয়া দত্ত সকল ছাত্র-ছাত্রীকে ভবিষ্যতের শুভকামনা জানিয়ে বলেন “আমাদের সংস্থা সঠিক মেধা অনুযায়ী সঠিক মানের শিক্ষা ও বিষয় বেছে নিতে সাহায্য করে, ফলে বর্তমানে এই চাকরির অপ্রতুলতার যুগে তাদের নিজেদের উপর আস্থা ফিরে আসে ও ভবিষ্যতে নিজেদের বিভিন্ন পেশায় তারা সঠিকভাবে যুক্ত হতে পারে।আমরা বেসরকারী কোনো সংস্থার সাথে কোনো আপোস করিনা।আমরা যেকোনো রাজ্যে বা বিশ্বের যে দেশগুলির সাথে কাজ করি তাদের সরকারি সংস্থার সাথেই আমরা যুক্ত করি আমাদের ছাত্র-ছাত্রীদের”।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close