December 14, 2018
Breaking News
  • Home
  • Tollywood News
  • ফিল্ম ফেস্টিভালের দ্বিতীয় দিনেও জমজমাট
November 13, 2018

ফিল্ম ফেস্টিভালের দ্বিতীয় দিনেও জমজমাট

By 0 162 Views

সিনেমা তৈরির ক্ষেত্রে ভারতীয়দের মধ্যে প্রথম সার্থক প্রয়াস দেখিয়েছিলেন চন্দ্রমোহন সেন-এর কৃতি পুত্র হীরালাল সেন।শুধু বাংলা নয় ভরতীয় সিনেমার জনকরূপে হীরালাল সেনের নাম করা চলে। আমরা কিন্তু সবাই সিনেমার জনক হিসাবে দাদা সাহেব ফালকের নাম জানি।তিনি পরিকল্পিতভাবে সবার কাছে পৌঁছে দিয়েছিলেন।কিন্তু আসল জনক কিন্তু হীরালাল সেন।এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে হীরালালের সমস্ত ডকুমেন্ট পুড়ে যাবার জন্য ক্রেডিট টা ফালকে সাহেব পেয়ে যান।এহেন মানুষটাকে নিয়ে প্রথম যিনি ভাবলেন তিনি ‘এগারো’,’চোলাই’ খ্যাত পরিচালক অরুণ রায়। দুবছর রিসার্চওয়ার্কের পর একবছর শুটিং করে তিনি বানালেন হীরালালের বয়োপিক। কলকাতা চলচিত্র উৎসবের দ্বিতীয় দিনে ‘হীরালাল’ ছবিটির স্ক্রিনিং হয়ে গেল।ছবিটি ইন্ডিয়ান কলকাতা আন্তর্জাতিক ল্যাঙ্গুয়েজ কম্পিটিশনে স্থান পেয়েছে।ছবি স্ক্রিনিং-এর আগে সাংবাদিক সম্মেলনে পরিচালক জানালেন,”প্রত্যেক বছর আমাদের এখানে(ভারতে)এখন ৯০০ ছবি তৈরি হয়। প্লানিং ওয়েতে সবার কাছে প্রথম যিনি পৌঁছে দেন তিনি হলেন দাদাসাহেব ফালকে।কিন্তু তিনি ভরতীয় সিনেমার জনক নন।ভরতীয় সিনেমার জনক অন্য কেউ।তিনি হলেন আমাদের বাংলারই হীরালাল সেন। দাদাসাহেবের প্রথম ছবি মুক্তি পেয়েছিল ১৯১৩ সালে।কিন্তু তার আগেই ১৯০৩,১৯০৪,১৯০৫ সালে হীরালাল সেন ছবি সংক্রান্ত সমস্ত জিনিস বানিয়ে ফেলেছিলেন। ছবিটির প্রযোজনা করেছেন ইন্দ্রজিৎ রায়।তিনি জানালেন,”হীরালাল সেনকে নিয়ে এটা পূর্ণ দৈর্ঘ্যের বাংলা ছবি।হীরালাল সেন বাংলা তথা ভরতীয় সিনেমার জনক।তাঁকে নিয়ে বয়োপিক করতে পেরে খুব ভালো লাগছে।”তিনি এও জানালেন এটি বাংলা সিনেমার দলিল হতে পারে। এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন প্রযোজক ইন্দ্রজিৎ রায়,পরিচালক অরুণ রায়,হীরালাল চরিত্রে অভিনয়কারী কিঞ্জল নন্দা,অনুষ্কা চক্রবর্তী(হীরালালের স্ত্রীর চরিত্রে রয়েছেন),তন্নিষ্ঠা চক্রবর্তী(কুসুমকুমারীর চরিত্রে),পার্থ(মতিলাল সেনের চরিত্রে), অর্ণ মুখোপাধ্যায়(অমরেন্দ্রনাথ দত্তর চরিত্রে),অঙ্কন(হীরালালের ছোটবেলায়)।
এছাড়াও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়, খরাজ মুখোপাধ্যায়,শঙ্কর চক্রবর্তী।আজ ফোকাস কান্ট্রি অস্ট্রেলিয়ারও সাংবাদিক সম্মেলন হয়।সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা সাইমন বেকার,
আইকনিক ডিরেক্টর ফিলিপ নয়েস,অস্কার অ্যাওয়ার্ড নমিনেটেড এডিটর জিল বিলকক, প্রযোজক জেমি হিলটন প্রমুখ। সাংবাদিক সম্মেলনে জানা গেল অষ্ট্রেলিয়ার বছরে খুব কম ছবিই মুক্তি পায়।এও জানা গেল ওদেশে কোনো সেন্সর বোর্ডও নেই।তবে উল্টোপাল্টা চবি করলে পেনাল্টি হবে। এদিনের মুক্তমঞ্চে সান্ধ্যকালীন আড্ডা ছিল ‘জুটি না গল্প’।আড্ডায় ছিলেন সৌমিত্র চট্টপাধ্যায়,প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়,ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।এদিন সন্ধ্যায় ফিল্ম ফেস্টিভালে হঠাৎই উপস্থিত হন মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।তিনি ফেস্টিভাল চত্ত্বর ঘুরে দেখলেন এবং কিছুক্ষন মুক্তমঞ্চে বসে আড্ডাও শোনেন।

 

 

রামিজ আলি আহমেদ

 
Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *